تَعَلُّمِي اللُّغَةَ العَرَبِيَّةَ (23)

আকীদা হোক সুদৃঢ়

আমার কাছে ইসলামই কেন একমাত্র শ্রেষ্ঠ ধর্ম? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে লক্ষ্য করলাম, ইসলামের মত অন্য কোন ধর্মই বুক উঁচিয়ে দীপ্ত কণ্ঠে ঘোষণা দিতে পারেনি যে, সে ছাড়া অন্য সব ধর্মই বাতিল। অন্য অনেক ধর্মের অনুসারীরা হয়ত এই বিশ্বাস রাখে বা তাদের ধর্মগুরুরা এমন কথা বলে। কিন্তু ধর্মীয় গ্রন্থের মধ্যে সুস্পষ্ট শব্দে এটা ঘোষণা দেওয়ার কথা আমার নজরে পড়েনি। এটা ইসলামের অন্যতম বৈশিষ্ট্য বলে মনে হয়েছিল তখন। কারণ এমন ঘোষণা তখনই সম্ভব, যখন নিজের ব্যাপারে শতভাগ নিশ্চয়তা দেবার মত আত্মবিশ্বাস থাকে।

এই বিষয়টি যেহেতু সরাসরি কুরআনে এসেছে তাই এটি বিশ্বাস করা প্রতিজন মুসলিম নর-নারীর জন্য অপরিহার্য। ইসলামী জ্ঞানের অভাবের কারণে অনেকের কাছে এটি কঠোরতা মনে হতে পারে। অনেকে আবার এই বিশ্বাসগুলো নিয়ে সংশয়ে ভোগে। পশ্চিমা প্রভাবিত আধুনিক বিশ্বের সামনে কথাগুলো বললে সংকীর্ণমনা, উগ্র ও অন্ধকারাচ্ছন্ন ট্যাগ খাওয়ার ভয়ে থাকে। কোন কোন ‘প্রগতিশীল’ মুসলিম এসব কথা মুখেও আনতে চায় না এই ভয়ে যে, এতে করে প্রগতিশীলতার তালিকা থেকে তার নাম বাদ পড়ে যেতে পারে। নিজেকে উদারমনা প্রমাণ করতে গিয়ে কখন যে এরা ঈমানের মত মহামুল্যবান সম্পদ খুইয়ে বসে নিজেও টের পায় না। অথচ প্রতিজন মুসলিমের উপর অবশ্য কর্তব্য হচ্ছে এই বিশ্বাসগুলোর ব্যাপারে শতভাগ স্বচ্ছ থাকা।

বর্তমান সময়ে যেহেতু এই বিশ্বাসটিসহ আরও আকীদার আরও কিছু বিষয় নড়বড়ে হয়ে যাচ্ছে মুসলিম সমাজে, তাই সবার উচিত এই বিষয়গুলো অন্তরের অন্তস্তলে বসিয়ে নেওয়া। নিজ পরিবার পরিজন ও সন্তান-সন্ততির মগজ-মস্তিষ্কেও তা গেঁথে দেওয়া। একে একে এমন কিছু বিষয় তুলে ধরছি-

১. ইসলামই একমাত্র আল্লাহর কাছে মনোনীত ধর্ম। ইসলামের বাইরের অন্য সকল ধর্ম বাতিল ও অগ্রহণযোগ্য। ইসলামের আগমনের পর অন্য আসমানি ধর্ম রহিত হয়ে গেছে। কুরআন বলছে-
اِنَّ الدِّیۡنَ عِنۡدَ اللّٰہِ الۡاِسۡلَامُ
‘নিশ্চয়ই ইসলামই আল্লাহর নিকট একমাত্র ধর্ম।’ (সূরা আলে ইমরান : ১৯)

২. ইসলাম ছাড়া অন্য কোন ধর্মের মাধ্যমে পরকালীন নাজাত পাওয়া অসম্ভব। চাই যত ভালো থেকে ভালো কাজই করা হোক না কেন। এটি আল্লাহ তাআলা কখনোই গ্রহণ করবেন না। গ্রহণযোগ্যতার প্রথম শর্তই হলো ঈমান আনা। কুরআন বলছে-

وَ مَنۡ یَّبۡتَغِ غَیۡرَ الۡاِسۡلَامِ دِیۡنًا فَلَنۡ یُّقۡبَلَ مِنۡہُ ۚ وَ ہُوَ فِی الۡاٰخِرَۃِ مِنَ الۡخٰسِرِیۡنَ
‘কেউ ইসলাম ছাড়া অন্য কোন ধর্ম চাইলে তার থেকে সেটা কখনো গ্রহণ করা হবে না। আর পরকালে সে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।’ (সূরা আলে ইমরান : ৮৫)

৩. ইসলাম এসেছে আল্লাহর দ্বীনকে আল্লাহর জমীনে বাস্তবায়িত করতে। যতদিন পৃথিবীর এক ইঞ্চি মাটিও শরীয়াহর অধীনে আসা বাকি থাকবে এবং মুসলিমদের শক্তি-সামর্থ্য থাকবে, তাদের দায়িত্ব হলো সেই ইঞ্চিকেও আল্লাহর আইনের অধীনে আনা। আর সেটা সম্ভব না হলে তা করার আকাঙ্খা রাখা। (শরীয়াহর অধীনে আনা মানে এই না জোর করে কাউকে মুসলিম বানানো হবে। কেউ চাইলে নিজ ধর্মে থাকবে, নিজ ধর্মের চর্চা করবে। তবে তখন তাকে/তাদেরকে জিযয়া দিতে হবে।) কুরআন বলছে-

وَ قَاتِلُوۡہُمۡ حَتّٰی لَا تَکُوۡنَ فِتۡنَۃٌ وَّ یَکُوۡنَ الدِّیۡنُ کُلُّہٗ لِلّٰہِ
‘আর তাদের সাথে যুদ্ধ করতে থাক, যাতে ফেতনা (শিরক, কুফর ইত্যাদি অধর্ম) না থাকে আর দ্বীন (এবাদত) সামগ্রিকভাবে আল্লাহর জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়ে যায়।’ (সূরা আনফাল : ৩৯)

قَاتِلُوا الَّذِیۡنَ لَا یُؤۡمِنُوۡنَ بِاللّٰہِ وَ لَا بِالۡیَوۡمِ الۡاٰخِرِ وَ لَا یُحَرِّمُوۡنَ مَا حَرَّمَ اللّٰہُ وَ رَسُوۡلُہٗ وَ لَا یَدِیۡنُوۡنَ دِیۡنَ الۡحَقِّ مِنَ الَّذِیۡنَ اُوۡتُوا الۡکِتٰبَ حَتّٰی یُعۡطُوا الۡجِزۡیَۃَ عَنۡ ‌یَّدٍ وَّ ہُمۡ صٰغِرُوۡنَ
‘কিতাবধারীদের মধ্যে যারা আল্লাহ কিংবা পরকালে বিশ্বাস করে না, আল্লাহ ও তাঁর রসূল যা অবৈধ ঘোষণা করেছেন তাকে অবৈধ গণ্য করে না এবং সত্য ধর্ম গ্রহণ করে না তোমরা তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করো, যতক্ষণ না তারা নতি স্বীকার করে স্বেচ্ছায় জিযিয়া (ইসলামী রাষ্ট্রে অমুসলিমদের ওপর ধার্যকৃত কর) প্রদান করে।’ (সূরা তাওবা : ২৯)

৪. সব ধর্ম কখনোই সমান নয়। অবশ্যই ইসলাম চিরউন্নত, সমুন্নত ও মর্যাদাশীল। অন্য কোন ধর্মই এমন নয়। সেগুলো বাতিল ও মিথ্যা। কুরআন বলছে-
لَا یَسۡتَوِیۡۤ اَصۡحٰبُ النَّارِ وَ اَصۡحٰبُ الۡجَنَّۃِ ؕ اَصۡحٰبُ الۡجَنَّۃِ ہُمُ الۡفَآئِزُوۡنَ ﴿۲۰﴾
‘জাহান্নামের অধিবাসীরা আর জান্নাতের অধিবাসীরা সমান নয়। জান্নাতের অধিবাসীরাই সফলকাম।’ (সূরা হাশর : ২০)

হাদীস বলছে-
الإسلامُ يَعلُو ولا يُعلى‏ علَيهِ
‘ইসলাম (অন্য সকল কিছুর উপর) সুউচ্চকিত, তার উপর (অন্য কোন কিছু) উচ্চকিত হবার মতো নয়।’ (বুখারী তালিক, কানযুল উম্মাল: ২৪৬)


যে কেউ-ই এগুলোকে ইনিয়ে-বিনিয়ে আড়াল করতে চাইবে, ধর্মীয় সম্প্রীতির নামে অন্য ধর্মের উপর ইসলামের মর্যাদাবান হওয়াকে লুকাবে তার এই চিন্তাকে কঠিনভাবে পরিহার করতে হবে। চাই তিনি যত বড় আল্লামাই হন না কেন।

যদি কেউ নিজের পারিপার্শ্বিক অবস্থার কারণে এসব বিষয় সুস্পষ্ট উচ্চারণে বলতে না পারে, তার উচিত চুপ থাকা। এটা তার ওজর হিসেবে গ্রহণীয় হবে। কিন্তু এমন বক্তব্য ও চিন্তাধারা প্রচার করা শরীয়ত সমর্থিত নয়, যা ইসলামের এই অবস্থানকেই পরিবর্তন করে দেয়। বিশেষত যখন কিনা অনেক সাধারণ মুসলিম এসব নিয়ে নড়বড়ে বিশ্বাসের উপর আছে।

আল্লাহ আমাদের সবাইকে তার দ্বীনের সঠিক রূপের উপর অবিচল রাখুন। আমিন।

Share:

Facebook
Twitter
Pinterest
LinkedIn

জনপ্রিয় ব্লগ

বাংলা

হিফজ শিক্ষার্থীর বাবা-মায়ের জন্য ৮ পরামর্শ

অনেক বাবা-মায়ের স্বপ্ন থাকে ছেলেকে হাফেজ বানাবেন। নিজেরা আল্লাহর কালামকে পরিপূর্ণ বুকে ধারণ না করতে পারার আফসোস কিছুটা হলেও ঘোচানোর

পুরোটা পড়ুন
বাংলা

তাবলিগ জামাত : একটি নির্মোহ পর্যবেক্ষণ

ব্যক্তিগতভাবে আমি তাবলীগী জামাতের সাথে জড়িত কেউ না। তবে খুব কাছ থেকে তাদেরকে দেখার সুযোগ হয়েছে। ছাত্র জীবনে কয়েকবার ছাত্র-জামাতেও

পুরোটা পড়ুন